আমার শৈশব

আমার শৈশব

কবিতা সাহিত্য

আমার শৈশব

আমার শৈশব

রিয়া রায়

এই তো বেশ ছিলাম ভালোই
রোজ সকালে মায়ের বকুনি খেয়ে ঘুম ভাঙতো !
মা বলতো , ওঠ খোকা কত বেলা হলো , স্কুলে যেতে হবে তো।

ধরপরিয়ে উঠতাম তখন
স্নানটি সেরেই ব্যাগ পিঠে
দৌড়ে যেতাম রাস্তার মোড়ে
ভ্যান কাকু বলতো, কিরে?
আজ এতো দেরি কেনো রে?

স্কুলে ঢুকেই ব্যাগ রেখে
ছুটতাম সব মাঠের দিকে
তারপর দলবলে সবাই মিলে
জন-গণ-মন সেরেই ফের
যেতাম স্কুলের ঘরে ।

দিদিমণি ঘরে ঢুকেই বলতো
সুপ্রভাত ! সকলে ভালো আছো তো ?
পড়া হয়েছে ? হোমটাক্স করে এনেছো তো?

পড়া না পারলেই দিতো জোরে কানটি মলে
ফুঁপিয়ে কেঁদে বলতাম , আর হবে না দিদিমনি , ‘এবারের মতো দিন না ছেড়ে ।’

চার পিরিয়ডের পর টিফিন হলে
তড়িঘড়ি টিফিন খেয়ে ছুটতাম সব মাঠের দিকে ।
রুমালচুরি থেকে কুমির ডাঙা
সবই হতো এক পলকে ।

সব কেমন থমকে গেছে আজ
ঘুম ভাঙে এখন সকাল ন’টায়
মা তো আর বলেনা খোকা ওঠ
ভ্যান কাকুও আর আগের মতো ডাকেনা বেলা দশটায় ।

স্কুলটা আজ একলা দাঁড়িয়ে
বেঞ্চগুলো সব একলা বসে
বোর্ডটা আজ শুধুই ফাঁকা
প্রার্থনার লাইনে কেউ আসেনা
ভিড় বাড়িয়ে।

সবই আজ ঐ সেল ফোনটায়
জুম অ্যাপ আর হোয়াটস অ্যাপ
কি যে সব পড়া হয় ,ভাল্লাগেনা কিছুই আর! সকাল থেকে সন্ধ্যে শুধু বন্দী হই ফোনের মুঠায় ।

মাঝে মাঝে তো হেডফোন গুঁজে
মাথাব্যাথা করে সকাল সাঁঝে
কানেও খানিক কম শুনি ,
চোখ জ্বলে যায় দিন শেষে ।

সব কেমন হারিয়ে গেলো
আর তো শুনিনা ছুটির ঘন্টা
আর তো কেউ বলে না
কিরে খেলতে যাবি ?
তাহলে , নিয়ে আয় বলটা।

করোনা তুই কে ?
কেনো এলি বলতো?
কবে যাবি রে তুই ?
যা না প্লিজ
ফিরিয়ে দে না আমার শৈশবটা।

কালপুরানে লেখা পাঠানোর নিয়মাবলি

লেখাটি আপনাদের পছন্দ হলে অবশ্যই একটা লাইক দিবেন এবং কমেন্ট করে আপনাদের মতামত জানাবেন। যেকোনো সমস্যায় আমার মেইল ঠিকানায় অথবা ওয়েবসাইটের চ্যাট আইকনে ক্লিক করে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন, ধন্যবাদ।

ফেসবুক প্রোফাইল

ফেসবুক গ্রুপ

ফেসবুক পেজ

টুইটার

হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ

টেলিগ্রাম গ্রুপ

মেইল

1 thought on “আমার শৈশব

  1. খুব খুব ভালো লাগলো। কবিতা টা পড়ে।
    পুরো শৈশব টা মনে পড়ে যায়। এই রকম কবিতা থাকলে আরো দেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *